1. dainikasharalo@gmail.com : admin2021 :
  2. sagor201523@gmail.com : AKASH :
  3. anisurrohman2012@gmail.com : anisur : anisur rohman
  4. qtvbanglanews2018@gmail.com : sagor201523@gmail.com :
অভূতপুর্ব সুর্য বলয় দেখা গেল বেনাপোলের আকাশে - Dainikashar Alo
বুধবার, ১৭ অগাস্ট ২০২২, ০৩:৫২ পূর্বাহ্ন
শিরোনাম:
জাতির জনক বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমান শোষিত বঞ্চিত নিপিড়ীত বাঙালি জাতিকে নেতৃত্ব দিয়ে স্বাধীন সার্বোভৌম বাংলাদেশ নামক ভুখন্ডটি উপহার দিয়েছিল, তারপর তাকে হত্যা হতে হলো তারই সৃষ্ট এদেশীয় বিপথগামী সেনাবাহিনীর সদস্যদের হাতে আশরাফুল আলম লিটন সীমান্ত প্রেসক্লাবের নতুন কমিটি গঠন সভাপতি পক্ষী সাধারণ সম্পাদক রিপন সাংগঠনিক সম্পাদক রাসেল থানার মধ্যে খোলা আকাশের নিচে নষ্ট হচ্ছে কোটি টাকার গাড়ি বেনাপোলে পাসপোর্ট যাত্রীদের জিম্মি করার মিথ্যা সংবাদ প্রকাশ করার তীব্র প্রতিবাদ টাউট মিঠু বেনাপোলে আবারো আমদানিকৃত পণ্যে মিলল ফেনসিডিল, যৌন উত্তেজক ট্যাবলেট সহ নানা ধরনের ওষুধ বেনাপোলে শেখ কামালের ৭৩ তম জন্মদিন পালন বেনাপোল স্থল বন্দরে ঘোষনা বহির্ভুত ফল আমদানী করায় জরিমানা সহ প্রায় ৪৬ লাখ টাকা রাজস্ব আয় ছাত্রলীগ কেন্দ্রীয় কমিটির উপ পরিবেশ বিষয়ক সম্পাদক মনোনীত হয়েছেন বেনাপোলের আকাশ বেনাপোল কাস্টমসে রাজস্ব আয়ের ল্যমাত্রা ৫ হাজার ৯৬৬ কোটি টাকা নবগঠিত জাতিয় শ্রমিকলীগ এর বঙ্গবন্ধুর ম্যুরালে পুস্পস্তবক অর্পন

অভূতপুর্ব সুর্য বলয় দেখা গেল বেনাপোলের আকাশে

  • প্রকাশিত : মঙ্গলবার, ২৮ জুন, ২০২২

ডেস্ক রিপোর্টঃ

এক বিস্ময়কর ও বিরল দৃশ্য দেখা গেল দেশের আকাশে। উজ্জ্বল সূর্যকে ঘিরে ২২ ডিগ্রির এক অভূতপূর্ব বর্ণবলয় দেখা গেছে। ইংরেজিতে একে বলা হয় ‘সোলার হালো’। স্বচ্ছ বরফের মধ্যে দিয়ে সূর্যের আলো প্রবেশ করলে বায়ুমণ্ডলে এমন বলয় তৈরি হয় বলে ধারণা বিজ্ঞানীদের।

শুক্রবার দুপুর ১টার পর বেনাপোল সহ  বেশ কিছু অঞ্চলে এ বলয় দেখা গেছে। সূর্য বলয়ে ছবি অনেকেই ক্যামেরায় ধারণ করে এরইমধ্যে সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমে পোস্ট করেছেন।

চাঁদের চারপাশে বলয়ের সৃষ্টি হলেই বৃষ্টির সম্ভাবনা থাকে। কারণ, একটি ঝড়ের আগে

অনেক উচ্চ আলোকমেঘ সৃষ্টি হয়। যখন আমরা সূর্য বা চাঁদের চারপাশে সে বর্ণবলয় দেখি তখন খুবই পাতলা রঙিন মেঘগুলো আমাদের মাথার ২০ হাজার ফুট ওপরে জমা হতে থাকে। এ মেঘগুলোতে থাকে অতি ক্ষুদ্র বরফ ক্রিস্টাল বা স্ফটিক। আর এই বর্ণবলয়ের সৃষ্টি হয় সেসব বরফ স্ফটিকের প্রতিসরণ ও প্রতিফলন উভয়ের মাধ্যমেই।

চাঁদের আলো স্ফটিকের ভেতর প্রবেশ করে এবং ঠিক ২২ ডিগ্রি কোণে প্রতিসরিত হয়। স্ফটিকগুলো ঠিক সেভাবেই সজ্জিত ও বিন্যস্ত হয় ঠিক সেভাবেই, যেভাবে আমরা আমাদের চোখের সাপেক্ষে বর্ণবলয়টা দেখি। আর মূলত এ কারণেই চাঁদ বা সূর্যের চারপাশে এই বর্ণবলয় সৃষ্টি হয়। এই বর্ণবলয়েরর ব্যাস হয় ২২ ডিগ্রী।

বর্ণবলয়ের কারণ জেনে মনে হতে পারে এটা খুবই দুর্লভ একটা ঘটনা। আসলে তা নয়। বরং ২২ ডিগ্রি সৌর বর্ণবলয় বছরে প্রায় একশ’ বার দেখা যেতে পারে। অর্থাৎ রংধনুর চেয়েও বেশি দেখা যায় ২২ ডিগ্রির এই সৌর বর্ণবলয়।

 

এই পোস্টটি আপনার সামাজিক মিডিয়াতে শেয়ার করুন

Leave a Reply

Your email address will not be published.

এ সংক্রান্ত আরও সংবাদ
© স্বত্বাধিকার সংরক্ষিত ২০২১-২০২২
Theme Developed By ThemesBazar.Com