সংবাদ শিরোনাম :
আর্তমানবতার সেবায় নিয়োজিত থেকে যুগ যুগ বেঁচে থাকবে রওশনারা ফাউন্ডেশন এর রওশানারা—– মেয়র আশরাফুল আলম লিটন বেনাপোল পুটখালী সীমান্ত থেকে ৫ টি পিস্তল ৭ রাউন্ড গুলি ও ১ টি ম্যাগজিন উদ্ধার বেনাপোল পৌর ইমারত নির্মান শ্রমিক ইউনিয়ন এর পক্ষ থেকে ২০০ সদস্যদের মাঝে ঈদ উপহার শার্শায় বেকার আনসার সদস্যদের মাঝে ত্রান বিতরণ শার্শা আওয়ামী দলীয় কার্যালয়ে স্বাস্থ্য বিধি মেনে ইফতার বেনাপোলে জীবনের ঝুকি নিয়ে ভারত ফেরত যাত্রীদের সেবায় স্বাস্থ্য কর্মী হাসানুজ্জামান মৌলভীবাজারের কুলাউড়ায় বিদ্যুৎস্পৃষ্টে যুবকের মৃত্যু। পুটখালী ইউনিয়নে প্রধানমন্ত্রীর দেওয়া অর্থ বিতরণ ভারতে ভেরিয়েন্টে আক্রান্ত হওয়ায় বেনাপোলে বাড়তি সতর্কতা ।। বাংলাদেশী করোনা পজিটিভ যাত্রীকে দেশে প্রবেশ করতে দেওয়া হচ্ছে না ঝিনাইদহ সদর হাসপাতালের মোবাইল চোরের মুল হোতা আটক
সরাসরি ঘুষ লেন দেন বেনাপোল কাস্টমস হাউজে

সরাসরি ঘুষ লেন দেন বেনাপোল কাস্টমস হাউজে

বেনাপোল প্রতিনিধিঃ
ঘুষের টাকা নিয়ে দর কষাকষিতে মেতেছে বেনাপোল কাস্টমস হাউজের পরীক্ষণ গ্রুপ-০২ এর রাজস্ব কর্মকর্তা আঃ সালাম। তিনি সিএন্ডএফ এজেন্ট কর্মীদের ফাইলে বিভিন্ন সমস্যা আছে, মাল বেশি এধরনের কথা বলে, বিভিন্ন ভয়ভীতি দেখিয়ে জোরপূর্বক ঘুষের টাকা আদায় করছে বলে অভিযোগ উঠেছে।
ঘুষের টাকা নেওয়ার একটি ভিডিও তে দেখা যায়, এই রাজস্ব কর্মকর্তা সিএন্ডএফ এজেন্ট কর্মীদের কাছ থেকে ফাইল প্রতি বিভিন্ন সমস্যার কথা বলে নগদ ৩০০ টাকা থেকে ৩০০০ টাকা পর্যন্ত আদায় করছেন। কোন সিএন্ডএফ এজেন্ট কর্মী যদি বলেন স্যার গেটপাশ করার সময় টাকা দেবো। তাহলে তিনি তাদের ফাইলে সই করেন না। ভিডিওটিতে দেখা যায়, তার ড্রয়ারে টাকা দেওয়া পর তিনি ফাইলে সই করছেন। সেই সাথে তিনি সিএন্ডএফ এজেন্ট কর্মীদের সাথে ঘুষের টাকা নিয়েও দর কষাকষি করেন।

এবিষয়ে বেনাপোল সিএন্ডএফ এজেন্ট স্টাফ এসোসিয়েশনের একজন কর্মী নাম প্রকাশে অনিচ্ছুক বলেন, সালাম স্যার ফাইল পরীক্ষণের সাথে সাথেই তাকে ঘুষের টাকা পরিশোধ করতে হয়। টাকা না দিলে তিনি ফাইলে সই করেন না। বরং নানা ভাবে আমাদেরকে হয়রানি করেন। আমাদের অফিসের বসেরা গেটপাশ করার সময় টাকা দেন। সে কথা সালাম স্যারকে বললে, তিনি বলেন আমি নগদ ছাড়া ফাইলে সই করিনা। তাই বাধ্য হয়ে নিজেদের পকেট থেকে স্যারকে টাকা দিয়ে আসতে হয়।

এবিষয়ে রাজস্ব কর্মকর্তা আঃ সালাম বলেন, ওসব লেখালেখির ফাও ভয় দেখিয়ে আমাকে লাভ নেই। আপনাদের কিছু করার থাকলে করে নেন।

বেনাপোল কাস্টমস হাউজের ডেপুটি কমিশনার মোস্তাফিজুর রহমান বলেন, ঘুষ নেওয়ার বিষয়টি আমি জানি না। আর আমার কাছে এবিষয়ে কেউ কোন অভিযোগও করেনি।
কাস্টমস কমিশনার আজিজুর রহমানকে ফোন করলেও তিনি বরাবরারের মত এবারও ফোন রিসিভ করেন নাই।

 

সোশ্যাল মিডিয়াতে শেয়ার করুন

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *




সর্বস্বত্ব স্বত্বাধিকার সংরক্ষিত-২০২১ -এই ওয়েবসাইটের কোনো লেখা বা ছবি অনুমতি ছাড়া নকল করা বা অন্য কোথাও প্রকাশ করা সম্পূর্ণ বেআইনি।
Theme Developed BY AMS IT & Solutions
error: Content is protected !!