সংবাদ শিরোনাম :
আর্তমানবতার সেবায় নিয়োজিত থেকে যুগ যুগ বেঁচে থাকবে রওশনারা ফাউন্ডেশন এর রওশানারা—– মেয়র আশরাফুল আলম লিটন বেনাপোল পুটখালী সীমান্ত থেকে ৫ টি পিস্তল ৭ রাউন্ড গুলি ও ১ টি ম্যাগজিন উদ্ধার বেনাপোল পৌর ইমারত নির্মান শ্রমিক ইউনিয়ন এর পক্ষ থেকে ২০০ সদস্যদের মাঝে ঈদ উপহার শার্শায় বেকার আনসার সদস্যদের মাঝে ত্রান বিতরণ শার্শা আওয়ামী দলীয় কার্যালয়ে স্বাস্থ্য বিধি মেনে ইফতার বেনাপোলে জীবনের ঝুকি নিয়ে ভারত ফেরত যাত্রীদের সেবায় স্বাস্থ্য কর্মী হাসানুজ্জামান মৌলভীবাজারের কুলাউড়ায় বিদ্যুৎস্পৃষ্টে যুবকের মৃত্যু। পুটখালী ইউনিয়নে প্রধানমন্ত্রীর দেওয়া অর্থ বিতরণ ভারতে ভেরিয়েন্টে আক্রান্ত হওয়ায় বেনাপোলে বাড়তি সতর্কতা ।। বাংলাদেশী করোনা পজিটিভ যাত্রীকে দেশে প্রবেশ করতে দেওয়া হচ্ছে না ঝিনাইদহ সদর হাসপাতালের মোবাইল চোরের মুল হোতা আটক
সর্বাত্নক লকডাউন পালনে বেনাপোলে কঠোরতা।। সাধারন জনজীবন বিপর্যস্ত

সর্বাত্নক লকডাউন পালনে বেনাপোলে কঠোরতা।। সাধারন জনজীবন বিপর্যস্ত

সর্বাত্নক লকডাউন বাস্তবায়নে আজ সকাল ১০ টর দিকে বেনাপোল কেন্দ্রীয় শহীদ মিনার এলাকায় পুলিশের তৎপরতা

আলতাফ চৌধুরী
সর্বাত্নক লকডাউনের দ্বিতীয় দিনেও আজ বৃহস্পতিবার বেনাপোল স্থল বন্দর ও পৌর এলাকায় আইনশৃঙ্খলারক্ষাকারী বাহিনীর সদস্যবৃন্দ কঠোরভাবে সরকারী নির্দেশনা বাস্তবায়নের ইতিবাচক চেষ্টা অব্যাহত রেখেছে। যদিও সরকারী নির্দেশনা অনুযায়ী বেনাপোল কাঁচাবাজার, মাছবাজার ও মাংসের বাজার এলাকা খোলা জায়গায় নিয়ে যাওয়ার নির্দেশনা থাকলেও তা মানা হচ্ছে না। এ বিষয়ে শার্শা উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা মীর আলীফ রেজা এই প্রতিবেদকের কাছে মোবাইল ফোনে জানান, সুবিধাজনক খোলা জায়গায় বাজার সস্থানান্তর করার জন্যে আমরা পৌর মেয়র ও ইউনিয়ন পরিষদ চেয়ারম্যানকে নির্দেশনা দিয়েছি। তারা বলেছেন গত বছর এর মতো এবারও তারা বাজার সরিয়ে নিবেন।

আইনশৃঙ্খরক্ষাকারী বাহিনী তাদের দায়িত্ব পালনে পুরোপুরি তৎপর বটে। তবে সাধারন মানুষ বিশেষ করে ইজিবাইক চালক ভ্যান চালক দিন মজুর ফুটপাতের সবজি বা অন্যান্য পণ্য বিক্রেতা কিংবা হকার শ্রেনীর শ্রমজীবি মানুষ গুলো চরম ভোগান্তি শুরু হয়েছে। তারা ঠিকমত কিছুই করতে পারছে না। ফলে দিন আনা দিন খাওয়া এই প্রান্তিক জনগোষ্টির মানুষ গুলো পরিবার পরিজন নিয়ে নিদারুন কষ্টে পতিত হয়েছেন। গতবার যেমন লকডাউনের শুরুতেই পৌরসভা ইউনিয়ন পরিষদ কিংবা ব্যক্তি ও অন্যান্য প্রতিষ্ঠানের মাধ্যেমে দ্রুত চাল ডাল তেল লবন সহ ত্রান পৌছে দেওয়া হয়েছিল হতদরিদ্রদের মধ্যে এবার তার লক্ষনও নেই। ফলে সাধরন জনগনে বিরাজ করছে চরম হতাশা। সরকারী নির্দেশনা অনুযায়ী বাজার চলবে সকাল ৯ থেকে বিকাল ৩ টা পর্যন্ত। তাহলে ক্রেতা বিক্রেতাদের যাতায়াতের সুবিধার্থে এই সময়ের মধ্যে ভ্যান ইজিবাইক সহ অন্যান্য যানবাহন স্বাস্থ্য বিধি মেনে চলতে দিতে হবে। কিন্তু এখানে তা মানা হচ্ছে না। বেলা ১০ টার পর কোন যানবাহনই রাস্তায় থাকতে পারছে না। তাহলে বাজার ঘাট চলবে কি ভাবে? এমনকি অসুস্থ রোগী বহন কিভাবে হবে? সরকার বলবে মুভমেন্ট পাশ লাগবে কিন্তু হতদরিদ্র অশিক্ষিত সাধারন জনগন কি ভাবে অনলাইনে মুভমেন্ট পাশ জোগাড় করবে ? লকডাউন হোক করোনা প্রতিরোধ অভিযান চলুক সব ঠিক আছে । কিন্তু অবাস্তব কোন কিছু কি যৌক্তিক? এরকমই সাধারন জনমানুষের মনের অভিব্যক্তি। সরোজমিন বিভিন্ন পেশার মানুষের সাথে এসব জানা গেছে। বেনাপোল পোর্ট থানার ওসি মামুন খান এর কাছে এ বিষয়ে জানতে চাইলে তিনি বলেন আমরা জনগনের সুবিধার দিকে লক্ষ রেখেই সরকারের নির্দেশনা বাস্তবায়নের চেষ্টা চালিয়ে যাচ্ছি।

উল্লেখ্য গতবছর লকডাউন চলাকালে কাস্টমস পুলিশ বন্দর সহ বিভিন্ন ব্যক্তি প্রতিষ্ঠানও সাধারন জনগনের পাশে ত্রান সামগ্রীর সাহায্য নিয়ে দাঁড়িয়ে ছিল। কিন্তু এবার কাউকেও দেখা যাচ্ছে না। ভরসা শুধু পৌরসভা ও ইউনিয়ন পরিষদ। তাদের পক্ষ থেকেও কবে সাহায্য আসবে তা নিশ্চিত বলা যাচ্ছে না। তবে উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা আলীফ রেজা জানান, দ্রুতই প্রস্তুতকৃত তালিকা অনুযায়ী ৪৫০ টাকা করে জনপ্রতি বরাদ্দ হিসাবে পাঠিয়ে দেওয়া হবে।

 

সোশ্যাল মিডিয়াতে শেয়ার করুন

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *




সর্বস্বত্ব স্বত্বাধিকার সংরক্ষিত-২০২১ -এই ওয়েবসাইটের কোনো লেখা বা ছবি অনুমতি ছাড়া নকল করা বা অন্য কোথাও প্রকাশ করা সম্পূর্ণ বেআইনি।
Theme Developed BY AMS IT & Solutions
error: Content is protected !!