1. [email protected] : admin2021 :
  2. [email protected] : AKASH :
  3. [email protected] : anisur : anisur rohman
  4. [email protected] : [email protected] :
বেনাপোলে ৫০ বছর ঝাল মুড়ি বিক্রি করে শামছু মিয়ার চলে সংসার - Dainikasharalo.com
শনিবার, ০৪ ফেব্রুয়ারী ২০২৩, ০১:১০ পূর্বাহ্ন
শিরোনাম:
বেনাপোলে বিজিবি-বিএসএফ সেক্টর কমান্ডার পর্যায়ে বৈঠক বেনাপোলে পৃথক অভিযানে মদ-ফেনসিডিল সহ গ্রেফতার ৩ ভারতে জেল খেটে দেশে ফিরল তিন যুবক ও দুই যুবতী বেনাপোল সীমান্তে ৩ কেজি ৩৫০ গ্রাম স্বর্ণ উদ্ধার শার্শায় ট্রাকের চাকায় পিষ্ট হয়ে এক নারীর মৃত্যু শার্শায় ফসলের মাটি গিলে খাচ্ছে ভাটা : প্রভাবশালী সহ জড়িয়ে রয়েছে ইউপি সদস্যরা বেনাপোল পুটখালি সীমান্ত থেকে প্রায় দুই কেজি স্বর্ণসহ আটক ২ হারানো ১ লক্ষ ৭০ হাজার টাকা উদ্ধার করে ফিরিয়ে দিয়ে প্রশংশিত বেনাপোল পোর্ট থানা পুলিশ ডিমলায় সরকারী রাস্তার সাইড কর্তন দেখার কেউ নেই শার্শায় সড়ক দুর্ঘটনায় সিএনজি যাত্রী এক তরুণের মৃত্যু হয়েছে




বেনাপোলে ৫০ বছর ঝাল মুড়ি বিক্রি করে শামছু মিয়ার চলে সংসার

  • প্রকাশিত : সোমবার, ২৪ জানুয়ারী, ২০২২
  • ২৭৯ বার পঠিত:

মোঃ আনিছুর রহমানঃ
চারিদিকে মানুষের হই চৈ। প্রতিদিন যশোর জেলার বেনাপোল সীমান্তে নামে মানুষের ঢল। এই জায়গাটি পর্যটন এলাকা না হলেও প্রতিদিন স্থানীয় ও দেশী বিদেশী মানুষের যাতায়াত চলে সকাল থেকে সন্ধ্যা পর্যন্ত। কারন এটি একটি আন্তর্জাতিক চেকপোষ্ট ও দেশের বৃহৎ স্থল বন্দর। এ পথে প্রতিদিন হাজার হাজার লোক যাতায়াত করে ভারত বাংলাদেশ । আর সেখানে হাজির হয় জেলার ঝিকরগাছা থানার সত্তোর্ধ মানুষ ঝাল মুড়ি বিক্রেতা শামছুর রহমান। তিনি প্রতিদিন কাঁচা ছোলা সিদ্ধ ছোলা , ডিম ও ঝাল মুড়ি বিক্রি করে এসব মানুষের কাছে। প্রায় ৫০ বছর যাবৎ এই জনপদে শামছুর রহমান ছোলা মুড়ি বিক্রি করে স্বাবলম্বী।

 

বেনাপোল চেকপোষ্টের শুণ্য রেখার কাছাকাছি ১৮০ বছরের শিশু গাছ। সেখানে পাসপোর্ট যাত্রী সহ দেশের প্রত্যান্ত অঞ্চল থেকে আসা মানুষ ভীড় জমায়।আর সেই গাছ তলায় শামছুর রহমান এর স্বাদের মুখরোচক চানাচুর, ছোলা, মুড়ি ডিম খায় এসব মানুষ। যার যা ভালো লাগে সেটাই খায় তার এই ছোট টিনের বাক্স থেকে। কোন চেয়ার বা দোকান ছাড়া একটি ইটের পর বসে বিক্রি করে তিনি তার মুখরোচক এই খাদ্য সামগ্রী।

শামছুর রহমান এর সাথে কথা বলে জানা যায় তিনি একজন আত্নপ্রত্যয়ী মানুষ। জীবন যুদ্ধে হার না মানা একজন আত্নপ্রত্যায়ি। তার মনের মাধুরী দিয়ে চানাচুর, মুড়ি, কাঁচা মরিচ, পেয়াজ, ছোলা,রিা সহ বিভিন্ন রকম মসলা দিয়ে অত্যান্ত মুখরোচক ভাবে মুড়ি মাখিয়ে গ্রাহকদের মন আকৃষ্ট করে চলেছে। ঝালমুড়ি বিক্রি করেই আজ তিনি স্বাবলম্বী। বর্তমানে তিনি যশোর জেলার ঝিকরগাছা থানায় সুখের সংসারে আছেন। তার ৫ টি ছেলে মেয়ে । এর মধ্যে দুইটি ছেলে ও তিনটি মেয়ে। তবে তার একটি ছেলে প্রতিবন্ধী । ছেলে মেয়েদের সামান্য লেখা পড়া শিখিয়েছেন। মেয়েদের ভাল পাত্রর সাথে বিয়ে হয়েছে। শামছুর রহমান আরো বলেন ১৯৭৪ সাল থেকে এই বেনাপোলে আমি এসব মুখরোচক খাবার বিক্রি করি। সে সময় তাকে সকলে ভাই বললেও এখন সকলে তাকে বয়সের ভারে চাচা বলে।

প্রতিদিন বেনাপোল চেকপোষ্টের শিশু গাছটির নীচে দেখা যায় মানুষটির মুখে যেন সার্বনিক আনন্দের ছাপ। সকলের সাথে সে হেসে কথা বলে। প্রতিদিন আয় কত জানতে চাইলে বলে প্রতিদিন তার আয় ৪ শত থেকে ৫ শত টাকা। তাতে তার ভাল ভাবে সংসার চলে।

বেনাপোল চেকপোষ্টের আশাদুজ্জামান আশা বলেন, শামছুর রহমান একজন রসিক মানুষ। তাকে আমি ছোট বেলা থেকে দেখছি তিনি এই চেকপোষ্ট এলাকায় ঘুরে ঘুরে ছোলামুড়ি বিক্রি করে। মাঝে মাঝে তিনি কান্তি দুর করার জন্য গান গায়।
চেকপোষ্ট প্রাইভেড কার এর চালক মনিরুজ্জামান বলেন, শামছু চাচাকে আমরা ছোট বেলা থেকে দেখছি এসব ঝাল চানাচুর নিয়ে ছুটাছুটি করতে। আমরা সহ এখানে ট্রাক চালক ও ভারত বাংলাদেশের অনেক মানুষ তার ঝাল চানাচুর খেয়ে প্রশংসা করে।

 




এই পোস্টটি আপনার সামাজিক মিডিয়াতে শেয়ার করুন

এ সংক্রান্ত আরও সংবাদ




স্বত্বাধিকার সংরক্ষিত ২০২২    বিঃদ্রঃ গণপ্রজাতন্ত্রী বাংলাদেশ সরকারের নিয়ম মেনে তথ্য মন্ত্রণালয়ের অধীনে নিবন্ধনের জন্য অপেক্ষামান।

 
Theme Developed By ThemesBazar.Com
error: Content is protected !!