1. dainikasharalo@gmail.com : admin2021 :
  2. sagor201523@gmail.com : AKASH :
  3. anisurrohman2012@gmail.com : anisur : anisur rohman
  4. qtvbanglanews2018@gmail.com : sagor201523@gmail.com :
নৌকা প্রতিকের জন্য আমরা স্বাধীন সার্বোভৌম রাষ্ট্র পেয়েছি আমরা সেই প্রতিকের পক্ষে ভোট চাই- মেয়র লিটন - Dainikashar Alo
সোমবার, ২৯ নভেম্বর ২০২১, ০৮:২৭ অপরাহ্ন
শিরোনাম:
ট্রাক টার্মিনাল পাবলিক টয়লেট এর উদ্বোধন|| পাবলিক টয়লেট পরিচালনা ও রক্ষনবেক্ষনের জন্য বেনাপোল পৌরসভা ও ভুমিজ’র মধ্যে ইজারা চুক্তি স্বার শার্শায় ইউপি নির্বাচনে নৌকা বিদ্রোহী ভাগাভাগি শার্শায় ইউপি নির্বাচনে ৫টি বিদ্রোহী ও ৫টি নৌকা প্রতীকের প্রার্থীরা বিজয় অর্জন করেছে রবিবার শার্শার ১০ ইউনিয়নে ভোট : প্রস্তুুতি সম্পন্ন ‘বেনাপোল এক্সপ্রেস’ চলবে ২ ডিসেম্বর থেকে : স্বস্তিতে বেনাপোলসহ কলকাতাগামী যাত্রীরা জাতির জনক বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবকে হত্যা করে, বাংলার মানুষের আশা-আকাঙ্খাকেই খুনিরা হত্যা করেছে ——-মেয়র আশরাফুল আলম লিটন মানুষের সেবা করতে যেয়ে যে জনপ্রতিনিধির সম্পদ কমে যায়, সম্পদ বাড়ে না সেই জনপ্রতিনিধি নির্বাচন করুন ——- মেয়র আশরাফুল আলম লিটন সন্ত্রাস, দুর্বৃত্তায়ন ও সম্পদ লুন্ঠনকারী কোন মানুষ নামের দানবকে জনপ্রতিনিধী করবেন না———- মেয়র আশরাফুল আলম লিটন বেনাপোলের বাহাদুরপুর বাজারে নৌকার পক্ষে গনসংযোগ নৌকার গনজোয়ার দেখে স্পষ্ট বুঝা যাচ্ছে মুক্তিযুদ্ধের শক্তি বিজয় অর্জন করবে —- মেয়র লিটন

নৌকা প্রতিকের জন্য আমরা স্বাধীন সার্বোভৌম রাষ্ট্র পেয়েছি আমরা সেই প্রতিকের পক্ষে ভোট চাই—– মেয়র লিটন

  • প্রকাশিত : শনিবার, ২০ নভেম্বর, ২০২১
  • ১৮ বার পঠিত:

বেনাপোল প্রতিনিধিঃ
যশোর জেলা আওয়ামীলীগের যুগ্ম সাধারণ সম্পাদক বেনাপোল পৌর মেয়র আশরাফূল আলম লিটন বলেছেন, যে প্রতীকের মধ্যে দিয়ে আমরা স্বাধীন সার্বোভৌম রাষ্ট্র পেয়েছি আমরা সেই প্রতীকের পে ভোট চাই। দেশে শান্তি, নিরাপত্তার জন্য, দুর্নীতি দমন করার জন্য নৌকা মার্কায় ভোট চাই। নৌকার পালে হাওয়া লেগেছে, জোয়ার উঠেছে, নৌকা মার্কার জয় হবে।
বাহদুরপুর ইউনিয়ন পরিষদ এর নৌকা প্রতীকের প্রচারণা পথসভায় এসব কথা বলেন বেনাপোল পৌর মেয়র আশরাফুল আলম লিটন।

শনিবার বিকাল ৫ টার সময় বাহাদুরপুর বাজারে প্রধান অতিথি মেয়র আশরাফুল আলম লিটন বলেন, আজ শার্শায় বিএনপি থেকে আসা বাংলাদেশ আওয়ামলীগে যোগদান করা কিছু লোক নৌকা চেয়ে না পেয়ে বিদ্রোহী প্রার্থী হিসাবে নৌকার বিরুদ্ধে নির্বাচন করছে। তারা তাদের ভরাডুবি নিশ্চিত জানতে বুঝতে পেরে এলাকায় ত্রাস সৃষ্টি করছে। আর ত্রাসের সন্ত্রাসী কার্যকলাপের মদদ যোগাচ্ছে এই জনপদের বিত্তবান পরিবারে বুভু একজন উদ্ভাট চিন্তার অভাবী মানুষ রুপের দানব। আমি বাহাদুরপুর ইউনিয়ন বাসির কাছে প্রত্যাশা করব আপনারা নৌকা মার্কায় ভোট দিয়ে জয়যুক্ত হবেন। কারন নৌকা মার্কায় ভোট দিয়ে বাংলাদেশের জনগন মাতৃভাষা বাংলা ভাষায় কথা বলতে পারছে, এই নৌকা মার্কায় ভোট দিয়ে বাংলাদেশের স্বাধীনতা অর্জন করেছে। নৌকা মার্কায় ভোট দিয়েছিল বলে আজ সবার জীবনমান উন্নত হচ্ছে। জীবন যত উন্নত হচ্ছে , ছেলে মেয়েরা সুযোগ পাচ্ছে, উচ্চ শিার সুযোগ পাচ্ছে। নৌকা মার্কায় ভোট দিয়ে বিদ্যুতের সমস্যার সমাধান হয়েছে। ডিজিটাল বাংলাদেশ আপনারা পেয়েছেন, সেই সাথে অর্থনৈতিক উন্নতি হয়েছে।

মেয়র লিটন আারো বলেন, আজ যিনি নৌকার বিপে নির্বাচন করছেন তিনি আর কেউ না, তিনি হচ্ছেন বিএনপি থেকে আওয়ামীলীগে আসা মফিজুর রহমান। তিনি জাতির জনকের কন্যার কাছে নৌকা চেয়ে না পেয়ে তার প্রার্থীর বিরুদ্ধে নৌকা প্রতীকের বিরুদ্ধে নির্বাচন করছেন আনারস প্রতীক নিয়ে। তিনি আবার এই ইউনিয়নের আওয়ামীলীগের সাধারন সম্পাদক। আর এই ব-কলম মফিজকে এই ইউনিয়নের সেক্রেটারির দায়িত্ব দিয়েছে একজন দানব মানুষ। তিনি এই হাওড় দখল বাওড় দখল বালু উত্তোলন সহ নানা ধরনের অপকর্মের সাথে জড়িত এই বাহাদুরপুর ইউনিয়নে। তার জন্য আজ হিন্দু পরিবারে ও জেলে পরিবারে মানুষেরা বাওড়ে নামতে পারে না। সে এই বাহাদুরপুর ইউনিয়নের একজন অসভ্য মানুষ। তাই আমি ইউনিয়নের ভোটারদের কাছে বলব, আপনারা নিজেদের যার যা আছে বিক্রি করেন আমার আপত্তি নাই। আপনারা শুধু নিজেকে বিক্রি করবেন না। কারন আপনার ভোটে আপনি সন্মানিত হবেন। আপনি বলতে পারবেন আপনি কোন হাট দখল বালু দখল ভুমি দস্যুকে ভোট দেন নাই। আপনি ভোট দিয়েছেন একজন নির্লোভ সভ্য মানুষকে। যে মানুষটি সহ তার পিতা এই ইউনিয়নে একাধিকবার চেয়ারম্যান ছিল। যে মানুষটি সম্পদ বিক্রি করে মানুষের সেবায় সম্পদ লুন্ঠন করেন না। তিনি হচ্ছে একজন সভ্য শিতি ভদ্র মানুষ। আর তার বিরোধিতা করতে যে নির্বাচনে দাড়িয়েছেন আপনারা দেখেন সে চেয়ারম্যান শব্দটা পর্যন্ত লিখতে পারে না। তাই আপনারা সময় থাকতে নিজেরা সিদ্ধান্ত নিন কাকে ভোট দিবেন ?

তিনি আরো বলেন আজ আপনারা চিন্তা করেন বাহাদুরপুর ইউনিয়ন একটি শার্শা উপজেলার সব থেকে শিা, সংস্কৃতি চাকরি বাকরি সহ সকল দিকে উন্নত। আর সেই ইউনিয়নের মাদ্রাসা, স্কুলের সভাপতি হয় এই অশিতি লোকটি। কেন সভাপতি হয়েছেন তা আমার কাছে খবর আছে। কারন এখানে তিনি শিক নিয়োগে বানিজ্য করেন।

এসময় উপস্থিত ছিলেন বেনাপোল পৌর প্যানেল মেয়র সাহাবুদ্দিন মন্টু, বাহাদুরপুর ইউনিয়ন এর চেয়ারম্যান মিজানুর রহমান. যুবলীগের দপ্তর সম্পাদক আশাদুজ্জামান, বেনাপোল পৌর ৯ নং ওয়ার্ড আওয়ামীলীগের সাধারন সম্পাদক আশাদুজ্জামান আশা, আওয়ামী নেতা হাফিজুর রহমান, বাহাদুরপুর ইউনিয়ন ছাত্রলীগের সভাপতি এনামুল হক মুকুল প্রমুখ।

 

এই পোস্টটি আপনার সামাজিক মিডিয়াতে শেয়ার করুন

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

এ সংক্রান্ত আরও সংবাদ
© স্বত্বাধিকার সংরক্ষিত ২০১৮-২০২১
Theme Developed By ThemesBazar.Com
error: Content is protected !!