খারাপ ইমেজ নিয়ে বদলী হলো বেনাপোল পোর্ট থানার ওসি

খারাপ ইমেজ নিয়ে বদলী হলো বেনাপোল পোর্ট থানার ওসি

নাহিদ ,বেনাপোল প্রতিনিধিঃ
বেনাপোল পোর্ট থানার ওসি আবু সালেহ মাসুদ করিমকে বদলী করেছে। গত ৩১ জুলাই পুলিশ হেড কোয়ার্টারের এক আদেশে তাকে ঢাকা সিটি কর্পোরেশনের উত্তরায় (এ,পি,বি,এন )এ বললি করা হয়েছে। আবু সালেহ মাসুদ করিম গত ১০/০৭/১৮ তারিখে যশোর জেলার ঝিকরগাছা থানা থেকে বদলী হয়ে বেনাপোল পোর্ট থানায় যোগদান করেন। এই থানায় যোগদান করার পর থকে মাসুদ করিমের ইমেজ আস্তে আস্তে বিভিন্ন কারনে খারাপ হতে থাকে।
স্থানীয়রা জানায় ওসি মাসুদ করিম বেনাপোল পোর্ট থানায় যোগদান করার পর চুরি, ছিনতাই,ডাকতি মাদক ব্যবসা সহ আইন শৃংখলার চরম অবনতি দেখা দেয়। এছাড়া হুন্ডি ব্যবসায়ি মাদক ব্যবসায়িদের নিকট থেকে তার অধিস্থ দারোগারা তার যোগসাজসে অর্থ বানিজ্যর জন্য বেপরোয়া হয়ে উঠে। নাম প্রকাশ না করার শর্তে একজন অভিযোগ করে বলেন এই ওসি বেনাপোলের বড়আঁচড়া গ্রামের একজন চাকুরী জিবীকে ভয় ভীত দেখিয়ে এক লাখ ৫০ হাজার টাকা ঘুষ নেয়। তার অধিনস্ত এসআই মনির হোসেন ও এসআই হাবিবুর রহমান যখন তখন মাদকের গন্ধ পেলে আবার কখনো মাদক পকেটে ঢুকিয়ে দিয়ে থানায় এনে চালান না দিয়ে তাদের নিকট থেকে অর্থ বানিজ্য করত। বেনাপোল পোর্ট থানার এলাকায় গুজব আছে আটককৃতদের নিকট থেকে যে টাকা আদায় হবে তার ভাগ৭০% পাবে ওসি। আর ৩০% পাবে দারোগা। তারই খুব বিশ্বস্থ ভাজন এ এসআই মিজানুর রহমান ক্ষমতার অপব্যাবহার করে যাকে তাকে আটক করে অর্থ বানিজ্য করত। এরপর এটা বিভিন্ন সংবাদ মাধ্যমে প্রকাশ পাওয়ার পর তাকে বদলী করা হয়।

ওসি মাসুদ করিম বিনা অপরাধে বেনাপোলের ফাইভ ষ্টার পরিবহনের ম্যানেজারকে ডেকে নিয়ে এ প্রতিবেদকের সামনে কোন কিছু বুঝে উঠার আগে এবং কোন অভিযোগ না থাকা সত্বেও তাকে পিটিয়ে চামড়া তোলার হুমকি দেয়। এছাড়া বেনাপোলের একজন ব্যবসায়িকে তার একজন এস আই অযথা হয়রানি করছে কোন মামলা নেই এ অভিযোগ করলে তিনি বলেন মামলা নেই মামলা হবে।
এছাড়া তিনি এ থানায় যোগদান করার পর বেনাপোল চেকপোষ্টে বার বার ছিনতাইয়ের মত ঘটনা ঘটলেও মাথা ব্যাথা ছিল না তার। ওইসব ছিনতাই কারীদের সাথে ছিল তার অধিনস্থদের আছে সখ্যতা। এছাড়া বেনাপোল পৌর আওয়ামীলীগ কার্যালয় ভাংচুর এর মত ঘটনায় তিনি আসামি গ্রেফতার করলেও সেই আসামিদের নিকট থেকে উদ্ধার করতে পারে নাই চুরি যাওয়া দুটি কম্পিউটার।

এ ব্যাপারে ওসি আবু সালেহ মাসুদ করিমকে ফোন দিলে তিনি ফোন বন্ধ পাওয়া যায়। বর্তমান দায়িত্বে ওই থানার ওসি তদন্ত আলমগীর হোসেন এর কাছে জানতে চাইলে তিনি বলেন জনস্বার্থে তাকে বদলী করা হয়েছে।
তবে থানার অনেকে মন্তব্য করেছেন এটা শাস্তি মুলক বদলী। এর আগে পক্ষপাতিত্বের অভিযোগ এনে ওসি মাসুদ করিমের বিরুদ্ধে ছাত্রলীগের নেতা কর্মীরা যশোর প্রেসক্লাবে সংবাদ সম্মেলন করেন।

আপনার মন্তব্য এই বক্সে লিখুন

সোশ্যাল মিডিয়াতে শেয়ার করুন

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *




সর্বস্বত্ব স্বত্বাধিকার সংরক্ষিত-২০১৮-এই ওয়েবসাইটের কোনো লেখা বা ছবি অনুমতি ছাড়া নকল করা বা অন্য কোথাও প্রকাশ করা সম্পূর্ণ বেআইনি
Theme Developed BY AMS IT & Solutions