সংবাদ শিরোনাম :
বেনাপোল ট্রাক টার্মিনালের কার্যক্রম ব্যর্থ করে দিতে অশুভ চক্রের অপতৎপরতা শার্শায় নারী কেলেংকারী দিয়ে টাকা আদায়ের চেষ্টা শার্শা ও বেনাপোল সীমান্তে পৃথক অভিযানে ৮৮ কেজি গাজা সহ আটক ১ জোহরা ফ্রি মেডিকেল ক্লিনিক ডক্টরেট ডিগ্রি’ নিয়ে মমতাজ এর যত কথা সর্বাত্নক লকডাউন পালনে বেনাপোলে কঠোরতা।। সাধারন জনজীবন বিপর্যস্ত শার্শায় মাকে ধর্ষন করতে না পেরে ৮ বছরের মেয়েকে ধর্ষন চেষ্টা করার অভিযোগ আলিম নামে এক নরপশুর বিরুদ্ধে বেনাপোল চেকপোষ্টের প্রধান ফটক দিয়ে চোরাচালানি পণ্য প্রবেশ।। কাজে বাধা দেওয়ায় কাস্টমস শুল্ক গোয়েন্দাকে মারপিট বড়াইগ্রামে সিলিন্ডার বিস্ফোরণে ভয়াবহ অগ্নিকান্ড  বেনাপোল ট্রাক টার্মিনাল এর শুভ উদ্বোধন করেন যশোর জেলা প্রশাসক
বেনাপোলে মায়ের ফেলে যাওয়া উদ্ধারকৃত শিশুকে পিতার কাছে ফেরত দিল পুলিশ

বেনাপোলে মায়ের ফেলে যাওয়া উদ্ধারকৃত শিশুকে পিতার কাছে ফেরত দিল পুলিশ

বেনাপোলে মায়ের ফেলে যাওয়া উদ্ধারকৃত শিশুকে পিতার কাছে ফেরত দিল পুলিশ
আশাদুজ্জামান আশা
মা শব্দটি অত্যান্ত মধুর। যুগে যুগে কালে কালে এই শব্দটির কোন তুলনা হয়নি। আদর যত্নে সোহাগে একমাত্র পৃথিবীর সব যন্ত্রনা থেকে সহায়তা করতে পারে মা। আর মা ছাড়া সন্তান বড় হওয়া অস্বাভিক । একমাত্র মা না খেয়ে রাত জেগে পাথরে বুক বেধে সন্তানকে মানুষ করে তোলে । এসব অনেক পুরানো কথা। মায়ের বিকল্প কোন ঔষুধও নাই। শত কস্ট দুঃখ যন্ত্রনার মধ্যে থাকা মাও তার বিপতগামি সন্তানের জন্য ও মঙ্গল কামনা করে। আর সেই মা যখন পাষন্ড হয়ে যায় তখন এই শব্দটির উপর হয়ত অনেকের ঘৃনাও চলে আসে। এমনি একটি ঘটনা ঘটেছে বেনাপোল। ২ বছর এর শিশু সন্তানকে ফেলে মা পালিয়ে গেছে অজানার উদ্দেশ্য।
বেনাপোলে ২ বছরের একটি শিশুকে তার মা ফেলে যাওয়ার পর বেনাপোল পোর্ট থানা পুলিশ উদ্ধার করে থানা হেফাজতে নেয়। গত শুক্রবার শিশুটিকে উদ্ধারের একদিন পর শনিবার (৩ এপ্রিল) তার পিতার কাছে শিশুটিকে ফেরত দিল পুলিশ। উদ্ধার হওয়া শিশুটি বেনাপোল পৌর্ট থানার সাদিপুর গ্রামের কালু মিয়ার ছেলে আলিফ হাসান (২)।

বেনাপোল পোর্ট থানার এস আই মাসুম বিল্লাহ বলেন বেনাপোল বাজারের সোনালী ব্যাংকের পাশে একটি চায়ের দোকানে শিশুটিকে রেখে তার মা পালিয়ে যায়। চায়ের দোকানদার তোফাজ্জেল হোসেন শিশুটিকে থানায় হস্তান্তর করে। পরে ওই শিশুর ছবি সামাজিক যোগাযোগের মাধ্যমে ভাইরাল হলে শিশুটির পিতার নজরে আসে। শিশু আলিফকে আজ তার পিতা থানার সাদিপুর গ্রামের কালু মিয়ার কাছে হস্তান্তর করা হয়েছে।

শিশুটির বাবা কালু মিয়া বলেন তার স্ত্রী তাকে ফোন করে বলে ছেলেকে বেনাপোল বাজারে একটি চায়ের দোকানে রেখে সে চলে গেছে। পরে খোজ খবর নিয়ে কোথাও না পেয়ে তার এক আত্নীয়র মাধ্যেমে জানতে পারি ছেলে বেনাপোল পোর্ট থানায় রয়েছে। ওই আত্নীয় সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যম ফেসবুক এর মাধ্যেমে জানতে পেরে সংবাদ জানায়।

বেনাপোল পোর্ট থানার ওসি মামুন খান বলেন শিশুটির পিতা থানায় এসে উপযুক্ত প্রমান দিলে তার হাতে শিশুকে হস্তান্তর করা হয়।

 

 

 

সোশ্যাল মিডিয়াতে শেয়ার করুন

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *




সর্বস্বত্ব স্বত্বাধিকার সংরক্ষিত-২০২১ -এই ওয়েবসাইটের কোনো লেখা বা ছবি অনুমতি ছাড়া নকল করা বা অন্য কোথাও প্রকাশ করা সম্পূর্ণ বেআইনি।
Theme Developed BY AMS IT & Solutions
error: Content is protected !!