সংবাদ শিরোনাম :
বেনাপোল ট্রাক টার্মিনালের কার্যক্রম ব্যর্থ করে দিতে অশুভ চক্রের অপতৎপরতা শার্শায় নারী কেলেংকারী দিয়ে টাকা আদায়ের চেষ্টা শার্শা ও বেনাপোল সীমান্তে পৃথক অভিযানে ৮৮ কেজি গাজা সহ আটক ১ জোহরা ফ্রি মেডিকেল ক্লিনিক ডক্টরেট ডিগ্রি’ নিয়ে মমতাজ এর যত কথা সর্বাত্নক লকডাউন পালনে বেনাপোলে কঠোরতা।। সাধারন জনজীবন বিপর্যস্ত শার্শায় মাকে ধর্ষন করতে না পেরে ৮ বছরের মেয়েকে ধর্ষন চেষ্টা করার অভিযোগ আলিম নামে এক নরপশুর বিরুদ্ধে বেনাপোল চেকপোষ্টের প্রধান ফটক দিয়ে চোরাচালানি পণ্য প্রবেশ।। কাজে বাধা দেওয়ায় কাস্টমস শুল্ক গোয়েন্দাকে মারপিট বড়াইগ্রামে সিলিন্ডার বিস্ফোরণে ভয়াবহ অগ্নিকান্ড  বেনাপোল ট্রাক টার্মিনাল এর শুভ উদ্বোধন করেন যশোর জেলা প্রশাসক
বেনাপোলের বাহাদুরপুর গ্রামে সুদ খোর মহাজন লিটন খানের অত্যাচারে বাড়ি ছাড়া ইসরাফিল

বেনাপোলের বাহাদুরপুর গ্রামে সুদ খোর মহাজন লিটন খানের অত্যাচারে বাড়ি ছাড়া ইসরাফিল

বেনাপোলের বাহাদুরপুর গ্রামে সুদ খোর মহাজন লিটন খানের অত্যাচারে বাড়ি ছাড়া ইসরাফিল
মোঃ আশাদজ্জামান আশা
সুদের টাকায় জর্জরিত হয়ে বাড়ি ছাড়া হয়েও রেহাই পাচ্ছে না ইসরাফিল এর পরিবার। বেনাপোল পোর্ট থানার বাহাদুরপুর বাজারের সুদখোর মহাজন মুদি দোকানদার লিটন খান একই গ্রামের ইসরাফিলের জমি জায়গা লিখে নিয়ে বাড়ি ছাড়া করেছে বলে অভিযোগ করেছে ভুক্তভোগি পরিবার। এছাড়া এখন ওই পরিবারের একমাত্র ভিটাবাড়ি ও লিখে নেওয়ার জন্য চাপ প্রয়োগ করছে ।
বাহাদুরপুর গ্রামের ইসরাফিল এর স্ত্রী তাছলিমা জানায় তার স্বামী বাজারের লিটন খান এর দোকান থেকে বাকি মালামাল আনত। লিটন খান ওই মালের দাম সুদ হিসাবে দ্বিগুন তিনগুন টাকা নিত। এই ভাবে সে ২ লাখ টাকা থেকে সুদ হয়েছে সাড়ে ৮ লাখ টাকা বলে চাপ প্রয়োগ করে। এই ভাবে সে জোর করে মাঠের ধানী জমি লিখে নেয়। পর পর সে তিনটি দলিল করে। এরপরও নাকি তার সুদের টাকা পরিশোধ হচ্ছে না বলে সে আমাদের চাপ প্রয়োগ করে। ক্ষমতাধর সুদখোর মহাজন লিটন খান এর ভয়ে পালিয়ে বেড়াচ্ছে তার স্বামী ইসরাফিল। এখন সে আমার স্বামীকে না পেয়ে আমাদের বাড়ি থেকে নেমে যাওয়ার হুমকি দিচ্ছে; এবং বাড়ি লিখে দেওয়ার জন্য চাপ প্রয়োগ করছে। আমার তিনটি ছেলে মেয়ে আমি এদের নিয়ে কোথায় যাব বলে তাছলিমা হাওমাও করে কাঁদতে থাকে।

তাছলিমার ভাসুর ইব্রাহীম বলেন লিটন গ্রামে একজন সুদে মহাজন বলে পরিচিত। সে সামান্য দোকান বাকি দিয়ে লক্ষ লক্ষ টাকা দাবি করছে। তার টাকায় দিনেও সুদ রাতেও সুদ।

এ বিষয় আলাপ হয় বাহাদুরপুর বাজারে লিটন এর দোকানে। লিটন জানায় তার কাছে কোন সুদের টাকা নয়। তাদের সাথে বিরোধ বাঁধছে জমি ক্রয় নিয়ে। সে আমাকে জমি লিখে দেওয়ার আগে ওই জমি আরো দুই জনের কাছে বিক্রয় করেছে। যা আমি জানতাম না। বর্তমানে ওই দাগের এক একর ২৬ শতক জমির মধ্যে ৮৩ শতক জমি ক্রয় বাবদ মাত্র ২৭.৪২ শতাংশ জমি ভোগ দখল করছি। আমাকে ২০১৫ সালে দলিল করে দেওয়ার পর থেকে জমি ভোগ দখল করে আসছি। সম্প্রতি গ্রামের জামসেদ খা তার জমি বলে আগের দলিল দেখায় এতে আমার জমি শুন্য হয়ে যায়। এছাড়াও আমি ওই পরিবারের কাছে আরো পাওনা টাকা পাব। এ নিয়ে গ্রামে ও থানায় কয়েকদফা বিচার শালীশও হয়েছে। আমি মোট ৮৩ শতক জমি ক্রয় বাবদ ওদের ১২ লাখ টাকা দিয়েছি।
এ ব্যাপারে ওই বাজারের জনৈক দোকানদার একজন ব্যাবসায়ি শাহজাহান বলেন আমিও ওদের নিকট থেকে জমি ক্রয় করেছি। তবে আমার জমিতে কোন ভেজাল হয়নি।

 

সোশ্যাল মিডিয়াতে শেয়ার করুন

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *




সর্বস্বত্ব স্বত্বাধিকার সংরক্ষিত-২০২১ -এই ওয়েবসাইটের কোনো লেখা বা ছবি অনুমতি ছাড়া নকল করা বা অন্য কোথাও প্রকাশ করা সম্পূর্ণ বেআইনি।
Theme Developed BY AMS IT & Solutions
error: Content is protected !!