সংবাদ শিরোনাম :
ভারত থেকে ফেরত আসা আরো ৫০ জনকে বেনাপোল বিয়ে বাড়ি কোয়ারেন্টাইনে রাখা হয়েছে করোনা প্রতেিরাধে ”ভয় নয় সচেতনতায় জয়” সেই লক্ষে নিরাপদে বাড়িতে থাকার আহ্বান জানাল মেয়র লিটন শার্শার গোড়পাড়া সমাজ কল্যান সংস্থা খাদ্য বিতরন করল ৪৮০ পরিবারকে ভারত থেকে ফেরত আসা আরো ৪৮ জনকে বেনাপোল বিয়ে বাড়ি কোয়ারেন্টাইনে রাখা হয়েছে বেনাপোলে ৬ টি গ্রামে খাদ্য সামগ্রী বিতরণ করলেন সাংবাদিক বকুল মাহবুব কাউন্সিলার রাশেদ জনসচেতনাতা বৃদ্ধির লক্ষ্যে মাঠে; পৌর এলাকার কোন মানুষ যেন খাদ্যের অভাবে কস্ট না পায় মেয়র লিটনের দিক নির্দেশনা ভারত থেকে আরো ৮ জন সহ বেনাপোলে প্রাতিষ্ঠানিক হোম কোয়ারেন্টাইনে ৫২ বেনাপোল পৌর বিয়ে বাড়ি কমিউনিটি সেন্টারে ৪৪ জন কোয়ারেন্টাইনে; জেলা প্রশাসক সহ আইনশৃঙ্খলা রক্ষাকারী বাহিনীদের পরিদর্শন শার্শা উপজেলা ছাত্রলীগের খাদ্য সামগ্রী বিতরন বেনাপোলে মেয়র লিটনের নিজ অর্থায়নে দ্বিতীয় দফায় খাদ্য সামগ্রী বিতরন
মাহির বিরুদ্ধে ‘টাকা হাতিয়ে’ নেয়ার অভিযোগ পরিচালকের

মাহির বিরুদ্ধে ‘টাকা হাতিয়ে’ নেয়ার অভিযোগ পরিচালকের

 ডেস্ক রিপোর্টঃ

 ঢাকাই চলচ্চিত্রের জনপ্রিয় নায়িকা মাহিয়া মাহি। এবার তার বিরুদ্ধে ভয়ঙ্কর অভিযোগ তুলেছেন ‘অবতার’ সিনেমার পরিচালক মাহমুদ হাসান শিকদার। তার পরিচালিত সিনেমায় মাহি বাড়তি ‘টাকা হাতিয়ে’ নেয়ার অভিযোগ করেছেন।

এই প্রসঙ্গে পরিচালক মাহমুদ শিদার বলেন, মাহি ‘ঢ্যাকা অ্যাটাক’ ছবিতে যে পোশাক পরে একটি গানে অংশ নেন, সেই পোশাকটি পরেই ‘অবতার’ সিনেমার গানেও অংশ নেন। অথচ এই পুরানো ড্রেসের জন্য তিনি আমার কাছ থেকে ২৫ হাজার টাকা নেন। এমনকি এই সিনেমায় পুরনো পোশাক নতুন বলে চালিয়ে কয়েক লাখ টাকা হাতিয়ে নেন মাহি। পরবর্তীতে পোশাকগুলো ফেরতও দেননি তিনি।

তবে ওই সময় প্রতিবাদ করেননি কেন? এমন উত্তরে পরিচালক বলেন, মাহি শুটিং বন্ধ করে দিতে পারে, সেই ভয়ে প্রতিবাদ করিনি।

অভিযোগে মাহমুদ শিদার আরো বলেন, মাহি আমাকে পোশাক রেডি করার আগেই আগাম বাজেট দেন। তিনটি পোশাকের জন্য তিনি মোট ৭৫ হাজার টাকা নেন। মূলত এটি তার বাড়তি আয়ের রাস্তা।

পরিচালক দাবি করেন, শুটিংয়ের সময় মাহি যে পোশাকগুলো পড়েছেন, তার একটি ছেঁড়া ছিল এবং এটি ‘ঢ্যাকা অ্যাটাক’ ছবির পোশাক ছিল। তবে সে বাধ্য করেছেন টাকা দিতে। শুধু পোশাকই নয় যাতায়াত ভাতা’সহ নানা ইস্যুতে পরিচালক ও প্রযোজককে জিম্মি করেন মাহি।

পরিচালকের দাবি, শুটিংয়ের সময় তিনি (মাহি) উওরা থেকে আশুলিয়া যেতে কনভেন্স নিয়েছেন ৪ হাজার টাকা, মানিকগঞ্জ যেতে নিয়েছেন ৮ হাজার টাকা। অথচ ছবিটি মুক্তির সময় দেখাই মিলেনি মাহিয়া মাহির।

মাহমুদ শিকদার আক্ষেপ করে আরো জানান, প্রচারের সময় মাহির সঙ্গে বারবার যোগাযোগ করার চেষ্টা করলেও তিনি ফোনটি রিসিভ করেননি। মাহি যদি প্রচারণায় আসতেন, তাহলে ছবিটির রেসপন্স ভালো পাওয়া যেত।

এদিকে পরিচালকের অভিযোগ বিষয়ে মাহি বলেন, পরিচালক যদি তার অভিযোগ প্রমাণ করতে পারেন, তাহলে পোশাকের টাকা ফেরত দেব। তার সাথে যে চুক্তি হয়েছে, সে অনুযায়ী আমি কাজ করেছি। চুক্তির সময় যাবতীয় বিষয়গুলো উল্লেখ ছিল। এখন যদি অভিযোগ আনে, তাহলে আমার কিছু বলার নেই।

সোশ্যাল মিডিয়াতে শেয়ার করুন

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *




সর্বস্বত্ব স্বত্বাধিকার সংরক্ষিত-২০১৮-এই ওয়েবসাইটের কোনো লেখা বা ছবি অনুমতি ছাড়া নকল করা বা অন্য কোথাও প্রকাশ করা সম্পূর্ণ বেআইনি
Theme Developed BY AMS IT & Solutions