সংবাদ শিরোনাম :
বেনাপোলে খোলা আকাশের নীচে হাজার হাজার মানুষ করোনা আক্রান্তে খুলনা বিভাগে শীর্ষে যশোর যশোরে কেশবপুরের যুবক খুন ঈদের জামাতের পুর্বে কাউন্সিলার রাশেদ আলী জীবানু নাশক ঔষধ ছিটিয়ে আতঙ্ক থেকে দুরে রাখল মুসল্লীদের বেনাপোল পৌর ওয়ার্ডে পল্লী বিদ্যুৎ সংযোগের নামে চাঁদা আদায়ের অভিযোগ মানবতার ফেরিওয়ালা মেয়র লিটন বেনাপোলে পৌর মেয়র এর নির্দেশনায় প্রধান মন্ত্রীর ঈদ শুভেচ্ছা সামগ্রী বিতরন বেনাপোল পৌর ছাত্রলীগের পক্ষ থেকে শার্শা বাসী-কে ঈদের শুভেচ্ছা যশোরে ঘূর্ণিঝড় আম্পানের তাণ্ডবে মৃত্যু বেড়ে-১২ মানবতার ফেরিওয়ালার অপর নাম আশরাফুল আলম লিট্নঃ সাড়ে ১০ হাজার পরিবারের মধ্যে ঈদ উপহার সামগ্রী বিতরন
শার্শার সীমান্তে ৫০০ বোতল ফেনসিডিল সহ:চেয়ারম্যানের পুত্র আটক-৪

শার্শার সীমান্তে ৫০০ বোতল ফেনসিডিল সহ:চেয়ারম্যানের পুত্র আটক-৪

বেনাপোল প্রতিনিধিঃ
শার্শার গোগা সীমান্ত থেকে ৫০০ পিছ ফেনসিডিল উদ্ধার করেছে বিজিবি। তবে কোন চোরাচালানিকে আটক করতে পারে নাই। বৃহস্পাতিবার রাত ১২ টার সময় গোগার হরিষচন্দ্রপুর মাঠ থেকে ফেনসিডিলের চালানটি আটক করে।
স্থানীয় সুত্র জানায়, ভারত বাংলাদেশ এর কতিথ চোরাই সিন্ডিকেটের ঘাট মালিক বলে কালিনি গ্রামের জসিম ও তার ভাই নাজিম উদ্দিনের ছত্র ছায়ায় প্রতিদিন ফেনসিডিলের চালান দেশের অভ্যান্তরে প্রবেশ করে। এ ৫০০ পিছ ফেনসিডিলের মালিক ওই দ্ইু সহোদর সহ হরিষচন্দ্রপুর গ্রামের গোগা ইউপি পরিষদের মেম্বার বাবুল হোসেন, ও গোগা ইউনিয়ন পরিষদের চেয়ারম্যান আব্দুর রশিদের পুত্র স¤্রাট হোসেন। সম্প্রতি ওই স¤্রাট লেবার গোগার হান্নানের ছেলে শরিফুল ৫৯০ বোতল ফেনসিডিল সহ আটক হয়। এতে সম্রাট আসামি হয় মালের মালিক হিসাবে। ফেনসিডিলের এ মামলা থেকে জামিন পেয়ে আবারও সেই একই কাজে লিপ্ত হওয়ায় এলাকায় ব্যাপক গঞ্জন চলছে জনপ্রতিনিধির ছেলে সরাসরি ফেনসিডিল ব্যবসায় জড়িত।

গোগা ক্যাম্প ৫০০ বোতল ফেনসিডিল উদ্ধারের পর মালের মালিক বলে এলাকা বাসির অভিযোগের ভিত্তিতে বাবুল মেম্বারর কাছে বিষয়টি মোবাইল ফোনে জানতে চাইলে তিনি এ প্রতিদেককে বলেন, আমি এ মালের মালিক নই। আমি একজন জনপ্রতিনিধি। এ মাল কার তা জানার জন্য আমি এবং চেয়ারম্যান গভীর রাত পর্যন্ত তদন্ত করেছি। কেউ কেউ বলেছে এ মালের মালিক তোফাজ্জেল ও নাজমুল। এদের ভারতের বিশ্বনাথ ভোম্বল ফেনসিডিল দেয়। হরিষচন্দ্র মাঠে রাত ১২ টার সময় ফেনসিডিল ধরা পড়ল আপনাদের মাল না তবে কেন এত রাত্রে আপনারা না ঘুমিয়ে এ বিষয় নিয়ে বসলেন এমন প্রশ্নে তিনি ইতস্তত বোধ করে বলেন মালটি কার তা যাচাই বাছাইয়ের জন্য বসেছি।

তবে স্থানীয়রা তাদের নাম প্রকাশ না করার শর্তে বলেন, দির্ঘদিন ধরে ভারত থেকে ফেনসিডিল জসিম, নাজিম, বাবুল মেম্বার ও স¤্রাটের মাধ্যমে আসে। এরা এলাকায় ত্রাস। এদের বিরুদ্ধে যে কথা বলে তার উপর অত্যাচারের খড়ক সেমে আসে। গত ২৭ অক্টোবর জসিমের ভাগ্নে মফিজুর রহমান ফেনসিডিল সহ পুলিশের কাছে হাতে নাতে আটক হয়ে বর্তমানে জেল হাজতে। এছাড়া জসিমের ভাস্তে ইমরানের নামেও ইয়াবা ও ফেনসিডিল এর মামলা রয়েছে শার্শা থানায়।

গোগা ক্যাম্পের সুবেদার, ফুলমিয়া বলেন, রাত্রে মাঠের মধ্যে থেকে ৫০০ বোতল ফেনসিডিল উদ্ধার করেছি। তবে চেরাচালানিরা ধান ক্ষেতের মধ্যে দিয়ে দৌড়ে পালিয়ে যায়।

সোশ্যাল মিডিয়াতে শেয়ার করুন

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *




সর্বস্বত্ব স্বত্বাধিকার সংরক্ষিত-২০২০-এই ওয়েবসাইটের কোনো লেখা বা ছবি অনুমতি ছাড়া নকল করা বা অন্য কোথাও প্রকাশ করা সম্পূর্ণ বেআইনি
Theme Developed BY AMS IT & Solutions